মেনু নির্বাচন করুন
খবর

কৃষি শুমারি-২১০৯ এর প্রাথমিক ফলাফল প্রকাশ

দশ বছরে কৃষি খানা কমেছে প্রায় ৩ শতাংশ, কৃষি শুমারির প্রাথমিক রিপোর্ট

গত দশ বছরের তুলনায় দেশে কৃষি খানার হার কমেছে।২০০৮ সালে কৃষি খানার হার ছিল ৫৬ দশমিক ৭৪ শতাংশ।বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ২০১৯ এর প্রতিবেদন অনুযায়ী এ হার প্রায় ৩ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৫৩ দশমিক ৮২ শতাংশ।রোববার আগারগাঁওয়ে বিবিএস অডিটরিয়ামে কৃষি শুমারি-২০১৯ এর প্রাথমিক রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়।অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বিশেষ অতিথি মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রইছউল আলম মণ্ডল, বিবিএস সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্ত্তী, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব নাসিরুজ্জামান। এতে সভাপতিত্ব করেন বিবিএস মহাপরিচালক তাজুল ইসলাম।

প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে মোট খানার সংখ্যা ৩ কোটি ৫৫ লাখ ৩৩ হাজার ১৮০টি। আর কৃষি খানার সংখ্যা এই মুহূর্তে ১ কোটি ৬৫ লাখ ৬২ হাজার ৯৭৪টি। শুমারিতে মৎস্য খানা, কৃষি মজুর খানা, নিজস্ব জমি নেই এমন খানা, অন্যের কাছ থেকে জমি নিয়েছে এমন খানা ও মৎস্য চাষাধীন জমি আছে এমন খানার সংখ্যাও প্রকাশ করা হয়েছে। বিবিএসের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে মৎস্য খানার সংখ্যা ৯ লাখ ৯৫ হাজার ১৩৫টি। কৃষি মজুর খানার সংখ্যা ৯০ লাখ ৯৫ হাজার ৮৭৭টি। নিজস্ব জমি নেই এমন খানার সংখ্যা ৪০ লাখ ২৪ হাজার ১৮৯টি। অন্যের কাছ থেকে জমি নিয়েছে এমন খানার সংখ্যা ৬৭ লাখ ৬৩ হাজার ৪৮৭টি। মৎস্য চাষাধীন জমি আছে এমন খানার সংখ্যা ১৬ লাখ ৫ হাজার ১৮৫টি। কৃষি শুমারি-২০১৯ এ দেশে বর্তমান মুরগি, হাঁস, টার্কি, গরু, মহিষ, ছাগল ও ভেড়ার সংখ্যা তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে গৃহপালিত এসব পশুপাখির মধ্যে মুরগির সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। এরপর যথাক্রমে রয়েছে হাঁস, গরু, ছাগল, টার্কি, ভেড়া ও মহিষ। মুরগির সংখ্যা ১৮ কোটি ৯২ লাখ ৬২ হাজার ৯০১টি। হাঁসের সংখ্যা ৬ কোটি ৭৫ লাখ ২৯ হাজার ২১০টি। টার্কির সংখ্যা ১৪ লাখ ৪৫ হাজার ৪২০টি। গরুর সংখ্যা ২ কোটি ৮৪ লাখ ৮৭ হাজার ৪১৫টি। মহিষের সংখ্যা ৭ লাখ ১৮ হাজার ৪১১টি। ছাগলের সংখ্যা ১ কোটি ৯২ লাখ ৮৭ হাজার ৪১৩টি। ভেড়ার সংখ্যা ৮ লাখ ৯২ হাজার ৬২৮টি।মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব জানান, দেশের কর্মপরিকল্পনার জন্য নির্ভুল ডাটা প্রয়োজন। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নানা কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য ডিমের উৎপাদন কত, প্রতিদিন কত মিলিমিটার দুধ উৎপাদন হচ্ছে, মাছের উৎপাদন কত এবং এর মধ্যে ইলিশ, চিংড়ি ও মিঠা পানি থেকে মাছের উৎপাদন কত – এসব তথ্য কৃষি শুমারিতে থাকা প্রয়োজন। কিন্তু এবারের শুমারিতে এগুলো নেই। আগামী শুমারিতে এগুলো যুক্ত করার অনুরোধ রইল। কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব বলেন, এই কৃষি শুমারিতে অনেক শবজি/ফল বাদ পড়েছে। সেগুলো যুক্ত থাকা দরকার।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আমি আপনাদেরকে কথা দিচ্ছি আগামীতে যেসব কাজ হবে সেখানে আপনারা আরও নিবিড়ভাবে যুক্ত থাকবেন। যাতে করে এই ধরনের ছোটখাট ভুল এড়ানো যায়। ছোটখাট ভুল হলেও এগুলোর প্রভাব সুদূর প্রসারী। বিদেশি নয়, দেশি কৃষি জাত পণ্যের উৎপাদন বৃদ্ধির মধ্যেই দেশের মঙ্গল নিহিত রয়েছে। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের মনোযোগ দিতে হবে।

ছবি


ফাইল


প্রকাশনের তারিখ

২০১৯-১০-২৭

আর্কাইভ তারিখ

২০২০-০৩-৩১



Share with :

Facebook Twitter